• Sunday, December 15, 2019

রাজশাহীর খায়রুজ্জামান লিটনকে প্রেসিডিয়ামে নেওয়ার দাবি জোরালো হচ্ছে

  • Nov 30, 2019

রাজশাহী থেকে প্রেসিডিয়ামের সদস্য ছিলেন প্রয়াত মন্ত্রী ও এমপি ডা. মো. আলাউদ্দিন। ১৯৯৬ সালে ডা. আলাউদ্দিন বিএনপিতে যোগ দিয়ে রাজশাহী-৬ (তৎকালীন-৫) আসন থেকে এমপি হয়েছিলেন। তবে হারাতে হয়েছিল আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের পদটি। এরপর থেকে রাজশাহীর কোনো নেতা আওয়ামী লীগের এই পদটি পাননি।

আওয়ামী লীগের প্রয়াত সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল এ অঞ্চলের নেতৃত্বে ভারসাম্য রেখেছিলেন। কিন্তু তার মৃত্যুর পর বৃহত্তর রাজশাহী অনেকটা নেতৃত্ব শূন্য। তবে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের সম্মেলনে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে সমন্বয়ক করায় আশার আলো দেখছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। দুই বারের নির্বাচিত মেয়রকে এবার প্রেসিডিয়ামে দেখার আশা করছেন স্থানীয় নেতারা। সেই দাবিই এখন জোরালো হচ্ছে।

দলীয় সূত্রগুলোর মতে, দ্বিতীয় দফায় বিপুল ভোটে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের রাজনৈতিক গুরুত্ব বেড়েছে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে। ইতিমধ্যেই তাকে দেওয়া হয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক দায়িত্ব। সম্প্রতি রাজশাহী বিভাগের বগুড়া, নাটোর, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সম্মেলনের সমন্বয়ক করা হয়েছে লিটনকে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ কামারুজ্জামানের যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবেই শুধু নয়, খায়রুজ্জামান লিটন উত্তরাঞ্চলে দলের রাজনীতিকে আরও শক্তিশালী করতে নিরলসভাবে শ্রম দিচ্ছেন। তিনি ত্যাগী নেতাকর্মীদের সাংগঠনিকভাবে সক্রিয় করে নতুন করে দায়িত্ব দিচ্ছেন। এতে গতি পেয়েছে বিভিন্ন জেলা, উপজেলা থেকে সব তৃণমূল সংগঠন।

রাজশাহী-৫ আসনের এমপি এনামুল হক বলেন, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল সাহেবের মৃত্যুর পর উত্তরাঞ্চলে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে যে শূন্যতা ও ভারসাম্যহীনতা তৈরি হয়েছে, তা পূরণ করতে পারেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মীর ইকবাল বলেন, ‘দুইবারের মেয়র হয়ে তিনি রাজশাহীর অনেক উন্নয়ন করেছেন। দলের মধ্যে তার মূল্যায়ন হলে এ অঞ্চলে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত ও শক্তিশালী করতে ভূমিকা রাখতে পারবেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। আমরা প্রত্যাশা রাখি আগামীর সম্মেলনে লিটনকে প্রেসিডিয়ামে নেওয়া হবে।’

তবে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে দায়িত্ব দিবেন সেটাই নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করব। যে কোনো পর্যায়ের নেতৃত্বের জন্য দল থেকে যে তাকে দায়িত্ব দেওয়া হবে সেই দায়িত্ব তিনি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করবেন।’