• Tuesday, May 21, 2019

জ্বালানি ও বিদ্যুত খাতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে

  • Nov 24, 2018

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুত ও জ্বালানি খাতে কোম্পানির সংখ্যা ১৯টি। এর মধ্যে অক্টোবর মাসে ১০টিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে, ৭টিতে কমেছে এবং ২টিতে অপরিবর্তিত রয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কর্তৃক অক্টোবর মাসে কোম্পানিগুলোর সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্যমতে, অক্টোবর মাসে এ খাতের যে ১০টি কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে, তার মধ্যে ৩টি কোম্পানিতে বিনিয়োগ বেড়েছে সবচেয়ে বেশি। কোম্পানিগুলো হল-ইন্ট্রাকো সিএনজি, বারাকা পাওয়ার এবং খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড (কেপিসিএল)।

ইন্ট্রাকো সিএনজি ॥ সেপ্টেম্বর মাসে ইন্ট্রাকো সিএনজিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ২৮.৬৭ শতাংশ। অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০.৯৫ শতাংশে। এক মাসের ব্যবধানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে ২.২৮ শতাংশ। অর্থাৎ অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির ১৭ লাখ ১০ হাজার শেয়ার কিনেছেন। অক্টোবর মাসে কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল সর্বোচ্চ ৩১.৩০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ২৯.৭০ টাকা। গত বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির সর্বশেষ দর দাঁড়ায় ৩২.৬০ টাকা।

ইন্ট্রাকো সিএনজিতে উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার রয়েছে ৩০.৫১ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের ৩০.৯৫ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ৩৮.৫৪ শতাংশ।

বারাকা পাওয়ার ॥ সেপ্টেম্বর মাসে বারাকা পাওয়ারে বিনিয়োগ ছিল ২৭.৭২ শতাংশ। অক্টোবর মাসের প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯.১৮ শতাংশে। এক মাসের ব্যবধানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে ১.৪৪ শতাংশ। অর্থাৎ অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির ২৮ লাখ ৮০ হাজার শেয়ার কিনেছেন। অক্টোবর মাসে কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল সর্বোচ্চ ৩২.৫০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ২৬.৭০ টাকা। গত বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির সর্বশেষ দর ছিল ২৮.৭০ টাকা।

বারাকা পাওয়ারে উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার রয়েছে ১৮.০১ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের ২৯.১৮ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ৫২.৮১ শতাংশ।

খুলনা পাওয়ার ॥ সেপ্টেম্বর মাসে খুলনা পাওয়ারে প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৯.৪৪ শতাংশ। অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০.৪৮ শতাংশে। এক মাসের ব্যবধানে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে ১.০৪ শতাংশ। অর্থাৎ অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির ৩৭ লাখ ৫৭ হাজার শেয়ার কিনেছেন। অক্টোবর মাসে কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল সর্বোচ্চ ১৩৯.৩০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ১১২.২০ টাকা। গত বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির সর্বশেষ দর নেমে দাঁড়ায় ৭৭.৭০ টাকায়।

খুলনা পাওয়ারে উদ্যোক্তা পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৭০.৫৯ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ১০.৪৮ শতাংশ, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে ০.৭০ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৮.২৩ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। অক্টোবর মাসে এ খাতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাওয়া বাকি ৭ কোম্পানির মধ্যে ডরিন পাওয়ারে বেড়েছে ০.৯৩ শতাংশ, পাওয়ারগ্রীডে ০.২৩ শতাংশ, শাহাজীবাজারে ০.২০ শতাংশ, মবিল যমুনায় ০.১৮ শতাংশ, মেঘনা পেট্রোলিয়ামে ০.১৭ শতাংশ, পদ্মা ওয়েলে ০.১১ শতাংশ এবং জিবিবি পাওয়ারে ০.৯ শতাংশ।

অন্যদিকে, অক্টোবর মাসে এ খাতে বিনিয়োগ কমেছে ডেসকোতে ০.৯৮ শতাংশ, ইউনাইটেড পাওয়ারে ০.৯১ শতাংশ, সামিট পাওয়ারে ০.৭২ শতাংশ, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টে ০.৩৯ শতাংশ, যমুনা ওয়েলে ০.১০ শতাংশ, সিভিও পেট্রোক্যামিকেলে ০.০৮ শতাংশ এবং তিতাস গ্যাসে ০.০২ শতাংশ। তবে লিনডে বাংলাদেশে ও বিডি ওয়েল্ডিংয়ে অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ অপরিবর্তিত রয়েছে।

প্রকাশিত : ২৫ নভেম্বর ২০১৮