• Sunday, December 15, 2019

রাজশাহী জেলা পরিষদ কার্যালয়ে বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার!

  • Oct 28, 2018

রাজশাহী জেলা পরিষদ কার্যালয়ে রাসেল ভাইপার সাপ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিষধর এই সাপের দেখা মিলল জেলা পরিষদ কার্যালয়ে। অফিস চলাকালীন সময়ে জেলা পরিষদে ভবনে এই সাপের দেখা মেলে। পরে অফিসের কর্মীরা সাপটিকে মেরে ফেলে। ২৫ বছর বিলুপ্ত থাকার পর ২০১৩ সালে বরেন্দ্র অঞ্চলে প্রথম রাসেল ভাইপারের দেখা মেলে। তারপর সাপটি বেশ কয়েকজনের প্রাণ নিয়েছে। এই সাপে কাটার চিকিৎসাও খুব ব্যয়বহুল।

সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো, যেখানে কাটে সেখানে পঁচন ধরে। এই সাপটি এখন বরেন্দ্র অঞ্চলের আতঙ্ক। ধান কাটা মৌসুমে রাসেল ভাইপার আতঙ্কে চাষিরা জমিতে নামতে পারেন না। তবে শহরের নাগরিক জীবনে এই প্রথম রাসেল ভাইপারের দেখা মিলল।


জেলা পরিষদের নৈশপ্রহরী জিয়াউল হক জানান, তিনি এবং পিয়ন সোনাতন চন্দ্র দাস সন্ধ্যায় পরিষদ কার্যালয়ে আলো জ্বালাতে আসেন। ভেতরে ঢুকে তারা মেঝে ঝাড়ু দেয়ার মতো শব্দ শুনতে পান। এক পর্যায়ে তারা আলো জ্বেলে দেখেন মেঝেতে একটি সাপ। প্রথমে তারা প্রায় পাঁচ ফুট লম্বা এই সাপটিকে অজগর বলে ধারণা করেন। আলো জ্বালানোর পর সাপটি প্রথমে জেনারেটরের নিচে এবং পরে আলমারির নিচে গিয়ে আশ্রয় নেয়।


সাপটিকে বের করতে গিয়ে তারা দেখেন এটি রাসেল ভাইপার বা চন্দ্রবোড়া। তখন তারা ভয় পেয়ে সাপটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেন।
তারা জানান, কিছুদিন আগেও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের চেয়ারের নিচে একটি সাপ পাওয়া যায়। বৃষ্টি হলেই জরাজীর্ণ জেলা পরিষদ কার্যালয়ের ভেতরে পানি ঢুকে। এর সঙ্গে সাপ-ব্যাঙও ঢুকে পড়ে।


জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার বলেন, সাপটি রাসেল ভাইপার। কয়েক মাস আগে একটি সাপ তার চেয়ারের নিচে বসেছিল।
তিনি আরো বলেন, জরাজীর্ণ ভবনের কারণে সাপ ঢুকে পড়ছে। তারা একটি নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছেন।