• Wednesday, October 16, 2019

চাঁপাইনবাবগঞ্জে উন্নয়ন মেলায় প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির শতাধিক পণ্যর প্রদর্শন

  • Oct 06, 2018

ডি এম কপোত নবী : চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩ দিনব্যাপী চতুর্থ উন্নয়ন মেলা শনিবার শেষ হয়েছে। এবারের মেলায় সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ৮৬ টি স্টল অংশগ্রহণ করেছিল। যার মধ্যে জেলার উন্নয়ন সংস্থা প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটিও অংশগ্রহণ করেছিল। ৬৭ নং স্টলে প্রয়াসের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে মানুষকে জানাতে স্টলের ভেতরে এবং বাইরে বিভিন্ন জিনিষ প্রদর্শন করা হয়। মেলার ৩ দিনে প্রয়াসের স্টলে শিক্ষার্থীসহ দশৃনার্থীরা ভিড় জমান এবং বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানতে চায়।

৬৭ নং স্টলের সামনে খাঁচাসহ টার্কি, হাইড্রোফনিক ফডার, বিভিন্ন জাতের ঘাস চাষ, দেশী মুরগীর খাঁচা, এ্যাকুরিয়ামে বাহারী মাছ, ট্যাংক/কেস কালচার, কুচিয়া চাষ, ড্রাগন ফ্রুট, ছাদ বাগান, ট্রাইকো কম্পোস্ট, নার্সারী, প্রয়াস এপিকালচার-মধুর বক্স, মাচা পদ্ধতিতে ছাগল পালন, সমৃদ্ধি বাড়ী, পুষ্টি গ্রাম ও কিশোরী ক্লাব, খড়গোশ পালন প্রদর্শন করা হয়।

এ-ছাড়াও স্টলের ভেতওে প্রয়াস কর্মসূচি/ প্রকল্প ছবি প্রদর্শন, সংস্থার প্রকল্পভিত্তিক ফেস্টুন/ পোস্টার, প্রয়াস মধু, ঝুড়ি ব্যাগ (বড়), ঝুড়ি ব্যাগ ছোট), ঝুড়ি ব্যাগ (মাঝারি), আতা, স্ট্রবেরি (বড়), স্ট্রবেরি (ছোট), আঙ্গুর, টিস্যু বক্স, ফুলদানি, আপেল গাছ, হাত ব্যাগ, জামরুল গাছ, আপেল, ফুলকপি, কমলা, ডাব, পেয়ারা, ফ’ল ঝুড়ি, গোলাপ ফুল, চানাচুর (৫০০ গ্রাম), চানাচুর (২০০ গ্রাম), চানাচুর (১০০ গ্রাম), কাবলি (৫০০ গ্রাম), ডাল (৫০০ গ্রাম), ডাল (২০০ গ্রাম), নেট ব্যাগ (১২/১৩), টিস্যু ব্যাগ (১২/১৩), টিস্যু ব্যাগ (১২/১৪), জেলি, মাখন, নকশি কাঁথা, খাজা, সোন পাপড়ি, কিরণমালা ব্লাউজ প্রদর্শন করা হয়।

 

এ-ছাড়াও নিরাপদ বালাইনাশক ব্যবস্থাপনা, ফেরোমন ফাঁদ, ধানচাষে গুটি ইউরিয়া, মৌসুমি সবজি বীজ, কার্প-মলা মাছের মিশ্র চাষ, দেশি শিং মাগুর চাষ, কোয়েল পালন, গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ, সেলাই মেশিন প্রদান, ভিক্ষুক পুর্ণবাসন কর্মসূচী, বিণামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয়, কিশোরী ক্ণাব গঠণ ও বাল্যবিবাহ রোধে সামাজিক কর্মসূচী, মানব পাচার রোধ প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয় আগত দর্শনার্থীদের। মেলার সমাপ্তি পর্যন্ত ৩ দিনে প্রয়াসের স্টলে ফারুক হোসেন, মাহরিয়ার হোসেন শিমুল, আবু শালেক, জোবাইদুর রহমান, ডলার হোসেন, খলিলুর রহমান, কামাল, মজিবুর, হামিদ নিরলস কাজ করে দায়িত্ব পালন করেন।