• Monday, April 15, 2024

মাদকাসক্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাণ্ড!

  • Sep 25, 2018

আলোকিত ডেস্ক : চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগের প্রধান ফটকে তালা মেরে গতকাল রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাত থেকে লাপাত্তা হয়েছেন বিদায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (ইউএইচও) ডা. আসাদুজ্জামান।

এতে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবায় অচলাবস্থা দেখা দেয়। সোমবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জল ডা. সাইফুল ফেরদৌসের নির্দেশে তালা ভেঙে অফিসে ঢুকেছেন বহির্বিভাগের চিকিৎসক ও কর্মচারীরা।

এই ঘটনায় নাচোল উপজেলায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাদক সেবনের সময় গত ১১ সেপ্টেম্বর গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর পুরাতন বাজার এলাকা থেকে পুলিশের হাতে আটক হন নাচোল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (ইউএইচও) ডা. আসাদুজ্জামান। ওইদিনই চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. সাইফুল ফেরদৌসের জিম্মায় তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ওই ঘটনায় সম্প্রতি তাঁকে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলায় বদলি করা হয়। কিন্তু সেখানে তিনি যোগদান করেননি।

এরই মধ্যে রবিবার সকালে তিনি আবারো নাচোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দায়িত্ব পালন করতে গেলে হাসপাতালের কর্মচারীরা তাঁকে বাধা দেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে রবিবার রাতে নাচোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বহির্বিভাগের প্রধান গেইটে তালা মেরে লাপাত্তা হন ডা. আসাদুজ্জামান। এরপর থেকে তাঁর মোবাইল ফোনও বন্ধ রয়েছে।

প্রধান ফটকে তালা মারার কারণে সোমবার সকালে বহির্বিভাগে আগত রোগী, চিকিৎসক ও কর্মচারীরা ভেতরে ঢুকতে পারেননি। ফলে চিকিৎসা সেবা বন্ধ হয়ে যায়। পরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জল ডা. সাইফুল ফেরদৌসের নির্দেশে সকাল ১০টার দিকে তালা ভেঙে অফিসে প্রবেশ করেন বহির্বিভাগের চিকিৎসক ও কর্মচারীরা। হাসপাতালের বহির্বিভাগের চিকিৎসক ডা. সারোয়ার জাহান জানান, সিভিল সাজর্নের নির্দেশে তালা ভেঙে হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা চালু করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জল ডা. সাইফুল ফেরদৌস বলেন, বিষয়টি অনাকাঙ্খিত ও দুঃখজনক। এই ঘটনায় ডা. আসাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে আইনি ও বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। 

এ ব্যাপারে বক্তব্য নেওয়ার জন্য অভিযুক্ত ডা. আসাদুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁর মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। -কালের কন্ঠ