• Tuesday, March 5, 2024

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীরা শনাক্ত কঠোর ব্যবস্থা

  • Aug 08, 2018

তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, কর্তব্যরত সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে হামলার ঘটনা দুঃখজনক। যারা হামলা করেছে তাদের শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের ছবি আমাদের হাতে এসেছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ইতিমধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে লিখিতভাবে অনুরোধ করেছি।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিশু-কিশোরদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিয়েছে সরকার। তিনি আরও বলেন, ঢাকার মার্কিন দূতাবাস ও জাতিসংঘের কার্যালয় থেকে যে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে, তা অযাচিত ও অনভিপ্রেত।

গতকাল সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত মতবিনিময়কালে তথ্যমন্ত্রী মার্কিন দূতাবাসের বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করে তা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছেন।

হাসানুল হক ইনু বলেন, বেপরোয়া গাড়ি চালনায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন ছাত্রছাত্রীর মৃত্যু ও কয়েকজন ছাত্রছাত্রীর আহত হওয়ার ঘটনায় সমগ্রজাতির সঙ্গে আমরাও ব্যথিত ও মর্মাহত। শিক্ষার্থীরা গণপরিবহনের অনিয়মগুলো ধরার জন্য বিভিন্ন রকমের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালায় এবং প্রশাসন তাদের পাহারা দিয়ে রাখে। প্রধানমন্ত্রীও তাদের দাবি মেনে নিয়ে তাত্ক্ষণিক পদক্ষেপ নেন। কোমলমতি শিশুদের নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকে একটি মহল ভিন্ন খাতে নিতে বিভিন্ন অপচেষ্টা চালালেও সরকার শিক্ষার্থীদের রক্ষায় পদক্ষেপ নেয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শিশুদের ওপর কোনো দমন-পীড়ন হয়নি, কোনো আক্রমণও হয়নি। ঢাকা শহরের দু-তিন জায়গায় বিক্ষিপ্ত-বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ হয়েছে। সেগুলোকে পুলিশ নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করেছে। ছাত্রছাত্রীদের ওপর কোনো আক্রমণ হয়নি। সরকার এ আন্দোলনের চেতনাকে ধারণ করে ও তাদের দাবি মেনে নিয়ে রাস্তায় অবস্থানকারী শিশু-কিশোরদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সবসময় সচেষ্ট ছিল। মার্কিন দূতাবাসের বিবৃতিতে শিশুদের আন্দোলনকে বর্বরোচিত হামলার মধ্য দিয়ে দমন করার যে কথা বলা হয়েছে, তেমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। মার্কিন দূতাবাস বিবৃতিতে ঢাকা শহরের বাস্তব চিত্রের বাস্তব প্রতিফলন করেনি। আমরা মনে করি এই রকম একটা পরিস্থিতিতে মার্কিন দূতাবাস যে বক্তব্য দিয়েছে, এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি বলেন, ঢাকার বাস্তব চিত্র ওই বিবৃতিতে ছিল না। এই বিবৃতির মধ্য দিয়ে মার্কিন দূতাবাস বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে শিষ্টাচারবহির্ভূত নাক গলানোর অপপ্রয়াস করেছে। আমরা এর নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করছি এবং তাদেরও তা প্রত্যাহারের অনুরোধ করছি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের বাংলাদেশ প্রধানের বিবৃতি ও মার্কিন দূতাবাসের বিবৃতি নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলন সম্পর্কে সঠিক বিবৃতি নয়। আমি সরকারের পক্ষ থেকে তথ্যমন্ত্রী হিসেবে এই বিবৃতিকে অনভিপ্রেত মনে করি, অযাচিত মনে করি। আশা করি, তারা এই ধরনের বিবৃতি দেবেন না এবং বাংলাদেশের প্রকৃত ঘটনার ভিন্ন চিত্রায়ণ করবেন না।

তথ্যমন্ত্রী জানান, বিবৃতি নিয়ে সরকারের ভাষ্য লিখিতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস ও জাতিসংঘকে জানানো হবে। নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতের জন্য আমাদের সব প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। যারা কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কাঁধে বন্দুক রেখে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছিল তাদের আমরা চিহ্নিত করছি। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেব।